স্টুডেন্ট বয়সে ইনকামের উপায়।

আমরা প্রায় সবাই চাই স্টুডেন্ট বয়সে কিছু না কিছু ইনকাম করতে আমাদের হাত খরচ চালানোর জন্য স্টুডেন্ট বয়সে মোটামুটি টাকার প্রয়োজন হয়।
আর এই টাকা আমরা নিয়ে থাকি আমাদের পরিবারের কাছ থেকে আবার অনেকের পরিবার হাত খরচের জন্য ভেস্তে টাকা পয়সাও দিতে চান না।

 আজকে আমি আপনাদেরকে কিছু বিষয় শেয়ার করব যে বিষয়ে কাজ করলে আপনারা আপনাদের নিজের হাতের খরচ নিজেই উপার্জন করে নিতে পারবেন।

আমাদের বাংলাদেশে অনেকেই স্টুডেন্ট বয়সে লেখাপড়া করেন তার পাশাপাশি টিউশনি করে টাকা আয় করেন এবং নিজের হাত খরচ চালান তাছাড়া অনেকেই টিউশনি করে নিজের ফ্যামিলি পরিবার চালাতে পারেন যদি আপনি ভালো পরিমাণ এর স্টুডেন্ট পান তাহলে আপনি টিউশনি করে প্রচুর পরিমাণে টাকা উপার্জন করতে পারবেন তার জন্য অবশ্যই যেকোনো একটা সাবজেক্টের উপর আপনার ভালো দক্ষতা অর্জন করতে হবে তাহলে আপনার এই সেক্টরে কাজ করে স্টুডেন্ট বয়সে আপনার নিজের হাত খরচের জন্য টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

অনেকে আবার বিভিন্ন শপিংমলে কাজ করেন এবং বিভিন্ন পার্ট টাইম চাকরি করেন এতে করে আপনার লেখা পড়ার সময় টা অনেকটাই কমে যায় যেহেতু আপনি একটি চাকরি করছেন এক্ষেত্রে আপনার লেখাপড়ার একটু সমস্যা হতে পারে আপনার চাকরির ক্ষেত্রে এই কাজগুলো করে আমাদের দেশে অনেকেই নিজের হাত খরচ জোগাড় করছেন তাছাড়া আরও অনেক জনপ্রিয় উপায় রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনি আপনার নিজের হাত খরচ টি উপার্জন করতে পারেন।

তার জন্য আজকে আমি অনলাইনে কয়েকটি কাজ সম্পর্কে আপনাদেরকে ধারণা দিব যে কাজগুলো করলে আপনি আপনার লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পারবেন এবং আপনার ঘরে বসে আপনি আপনার হাত খরচের টাকা উপার্জন করে নিতে পারবেন।

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় পেশাটি হচ্ছে স্টুডেন্টদের জন্য ইউটিউবে বাংলাদেশে প্রচুর পরিমাণে স্টুডেন্ট রয়েছে যারা 4-5 জন বন্ধু মিলে একটি ইউটিউব চ্যানেল পরিচালনা করেন এবং সেই ইউটিউব চ্যানেলটি থেকে তাদের হ্যান্ডসাম অ্যামাউন্ট আর্নিং হয় প্রতিমাসে এবং তাদের হাত খরচ খুব ভালোভাবে চলে যায়।

আপনি চাইলে আপনার বন্ধু-বান্ধবদেরকে নিয়ে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারেন যেখানে আপনার বেশ কিছু ভিডিও ধরনের আপলোড করতে পারেন যেমন ফানি ভিডিও আপলোড করতে পারেন শর্ট ফিল্ম তৈরি করতে পারেন এই ধরনের ভিডিও গুলো বাংলাদেশের মানুষ প্রচুর পরিমাণে দেখে।

তাছাড়া আপনার যদি কোন ভালো কিছু জানেন তাহলে সে বিষয়ে ইউটিউবে টিউটোরিয়ালটা করার মানুষ কে শেখাতে পারেন এর মাধ্যমেও আপনার ইউটিউব থেকে আর্নিং করতে পারেন যেমন প্রচুর পরিমাণে রয়েছে যারা বিভিন্ন ধরনের টিউটোরিয়াল ইউটিউব এ আপনার যদি একটি মোবাইল ফোন থাকে তাহলে আপনার একটি মোবাইল ফোন দিয়ে ইউটিউব এ কাজ করতে পারবেন।

আপনার যদি একটি স্মার্টফোন থাকে তাহলে আপনি ইউটিউবে খুব ভালোভাবে কাজ করতে পারেবেন ইউটিউবে গেলে আপনি দেখতে পারবেন প্রচুর পরিমাণে লোক রয়েছে যাদের কম্পিউটার নেই শুধুমাত্র মোবাইল এর উপর বিভিন্ন প্রোগ্রামের উপর রিভিউ দিয়ে এবং বিভিন্ন অপশন এর টিউটোরিয়াল দিয়ে তারা ইউটিউব চ্যানেলটি কন্টিনিউ করা যাচ্ছে এবং প্রতি মাসে একটি হ্যান্ডসাম ইনকাম করে যাচ্ছে।
আপনি যদি কোন একটি পেশায় ভালো জানেন এবং দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে আপনি ইউটিউব পেশাটি তে আসতে পারেন এবং এখান থেকে আপনি অনেক টাকা উপার্জন করে নিতে পারবেন।

আপনি যদি ইউটিউব এই পেশাটি তে কাজ করতে না চান তাহলে আপনার জন্য আরেকটি চমৎকার পাশে আছে যে ব্যাটারীতে কোন ধরনের ভিডিও এডিটিং ঝামেলা ভিডিও তৈরি করার ঝামেলা ছাড়াই আপনি কাজটি করতে পারবেন।

এফ এস টির নাম হচ্ছে ব্লগিং বা ওয়েবসাইটে কনটেন্ট রাইটিং করা আপনার যদি ওয়েবসাইটে লেখালেখি করেন তাহলে আপনি কোন ধরনের ঝামেলা ছাড়াই আপনি ভার্সিটি লেখালেখি করতে পারছেন জাস্ট আপনার যদি একটি মোবাইল ফোন থাকে তাহলে আপনি ওয়েবসাইটে লেখালেখি করে উপার্জন করতে পারবেন।

অনলাইনে ইনকাম করার জন্য ব্লগিং এটি একটি জনপ্রিয় পেশা এবং একটি স্মার্ট ক্যারিয়ার আপনার কাছে একটি মোবাইল ফোন থাকলে আপনি লেখালেখি শুরু করতে পারেন এবং আপনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে ফেলতে পারেন ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য বিভিন্ন উপায় রয়েছে আপনি প্রথমেই শুরু দিকে ব্লগস্পট ব্যবহার করতে পারেন এটি গুগলের একটি ফ্রি সার্ভিস ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য।

ওয়েবসাইটে লেখালেখি করার জন্য আপনি প্রতিদিন 2 ঘন্টা সময় দিতে পারেন আপনার ওয়েবসাইটের পিছনে এবং প্রতিদিন একটি করে পোস্ট করতে পারেন আশা করি আপনার ওয়েবসাইট থেকে প্রচুর পরিমাণে ইনকাম করতে পারবেন।

ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করার অনেকগুলো মাধ্যম রয়েছে প্রথমত হচ্ছে ওয়েবসাইট মনিটাইজেশন করে ইনকাম করা । ওয়েবসাইট মনিটাইজেশন করার জন্য অনেকগুলো ওয়েবসাইট রয়েছে এবং অনেক ধরনের এড নেটওয়ার্ক রয়েছে আপনার যে কোন একটি এড নেটওয়ার্ক থেকে আপনার ওয়েবসাইটে মনিটাইজেশন করতে পারেন।

তবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এড নেটওয়ার্ক আছে গুগল এডসেন্স আপনি ওয়েবসাইটে ভালো মানের কনটেন্ট পাবলিশ করে আপনি গুগল এডসেন্সে এপ্লাই করতে পারেন যদি গুগল এডসেন্স এপ্লাই হয়ে যায় তাহলে আপনি একটি ওয়েব সাইট থেকে প্রতি মাসে 200 থেকে 300 ডলার পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

তবে প্রথম দিকে আপনার এত পরিমাণে ইনকাম হবে না প্রথম দিকে আপনার ইনকাম টা কম হবে যখন আপনার ওয়েবসাইট আস্তে আস্তে প্রচুর পরিমাণে মানুষের কাছে প্রচার হওয়া শুরু করবে এবং আপনার ওয়েবসাইটটি অনেক মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে তখন আপনি দেখবেন আপনার ওয়েবসাইটে বেশি পরিমাণে ইনকাম হচ্ছে ওয়েবসাইট দিয়ে এমন লোক আছে বাংলাদেশে যারা প্রতি মাসে 10 হাজার ডলারের বেশি ইনকাম করছে তাই প্রথমে আপনার ইনকাম কম হবে তা নিয়ে টেনশন করার কোন কারণ নেই আপনি কাজ করতে থাকেন আস্তে আস্তে দেখবেন আপনার ওয়েবসাইটের প্রচুর পরিমান ভিজিটর আসবে এবং প্রচুর পরিমাণে ইনকাম হবে।

আমি আশা করি আপনারা এই বিষয়গুলো বুঝতে পারছেন যদি ধৈর্য ধরে কাজ করতে পারেন এবং লে থাকতে পারেন অনলাইনের এই দুটি সেক্টরে আনা আশা করি আপনি খুব দ্রুত সফল হতে পারবেন হয়তোবা তিন থেকে চার মাস সময় লাগতে পারে কিন্তু তার পর থেকে আপনি একটি স্মার্ট অ্যামাউন্ট ইনকাম করে নিতে পারবেন অনলাইন থেকে।

এবং স্টুডেন্ট বয়সে ইনকাম করার জন্যই এই দুটি মাধ্যম হচ্ছে চমৎকার একটি উপায় যে আপনি কোন ধরনের ঝামেলা ছাড়াই কাজ গুলি করতে পারবেন।


Post a Comment

0 Comments