ই কমার্স কে এবং ই-কমার্স বিজনেস কিভাবে করবেন

ই-কমার্স হচ্ছে ইন্টারনেটে বিজনেস করা বা ব্যবসা করা।

ঘরে বসে পণ্য ক্রয় করা অনেকেরই বর্তমানে স্বভাব হয়ে দাঁড়িয়েছে যারা প্রচুর পরিমাণে অনলাইন থেকে কেনাকাটা করেন তারা সাধারণত অনলাইন বিভিন্ন ই কমার্স সাইট থেকে পণ্যগুলো অর্ডার করে।
 এবং সেই পণ্যগুলো ঠিক সময়ের মধ্যে তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হয় ই-কমার্স সাইটগুলোর মাধ্যমে।

আপনার যদি ই-কমার্স বিজনেস করেন তাহলে ঠিক সেই কাজটাই করতে হবে বিভিন্ন মানুষ আপনার ওয়েবসাইটে এসে পণ্যের অর্ডার করবে ঠিক সময়ে পণ্য গুলো আপনি কাস্টমার এর কাছে পৌঁছে দেবেন এটাই হচ্ছে ই-কমার্স বিজনেস।

আপনার যদি ই-কমার্স বিজনেস করতে চান তাহলে আপনাকে আগে পণ্য ঠিক করতে হবে আর আপনি কোন পণ্যটি অনলাইনে বিক্রি করতে চাচ্ছেনএবং কোন পণ্যটি সম্বন্ধে আপনি ভালো জানেন ঠিক শেই পণ্যটি নিয়ে আপনি চাইলে অনলাইনে ই-কমার্স বিজনেস করতে পারেন এবং সেই বিজনেসে মাধ্যমে আপনি প্রচুর টাকা উপার্জন করতে পারবেন ই-কমার্স বিজনেস থেকে।

ই-কমার্স বিজনেস করতে হলে অবশ্যই আপনাকে একটি ওয়েবসাইট থাকতে হবে এবং আপনার নিজের কিছু প্রোডাক্ট থাকতে হবে যে প্রোডাক্ট গুলো আপনি আপনার ওয়েবসাইট সো করাবেন এবং সেখান থেকে যখন মানুষ অর্ডার করবে আপনি তখন তাদেরকে সেই পণ্যগুলো দিয়ে দিবেন।
তার জন্য আপনার কোম্পানীর জন্য একটি নাম সিলেক্ট করতে হবে এবং সে নামের উপর আপনাকে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে এবং সেখানে আপনি আপনার পণ্যগুলোর ছবি সো করিয়ে দিবেন যাতে মানুষ আপনার প্রোডাক্টের ছবিগুলো দেখতে পায় এবং প্রডাক্ট ডেস্ক্রিপশন দিয়ে দিবেন যাতে আপনার প্রোডাক্ট গুলো দেখে মানুষ বিভিন্ন ফিচার সম্পর্কে পড়তে পারে এবং জানতে পারেন সেখান থেকে অর্ডার করলে আপনি তাদের কাছে পাঠিয়ে দিবেন।

পণ্য বিক্রির মাধ্যমে আপনাকে তাদের কাছ থেকে যেভাবে পেমেন্ট নিবেন পেমেন্ট অনেক ভাবে নেওয়া যায় আপনি যে কোন একটি উপায়ে অথবা অনেকগুলো সেক্টর দিয়ে দিতে পারেন আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর যেন আপনাকে পেমেন্ট দিতে পারে।
 সেজন্য আপনার চাইলে পেমেন্ট ব্যাংকের মাধ্যমে নিতে পারেন চাইলে মাস্টার কার্ড ভিসা কার্ড এবং অনলাইন যে সমস্ত ট্রানজেকশন গুলো আছে পেপাল পেওনিয়ার সেই সমস্ত অপশন গুলো আপনি আপনার ওয়েবসাইটে এড করে দিতে পারে সে ক্ষেত্রে সেগুলো দিয়ে মানুষ আপনার ওয়েব সাইটে পেমেন্ট করব অথবা আপনার সাইটে cash-on-delivery সিলেক্ট করে দিতে দিতে পারেন সেখান থেকে মানুষ যখন প্রডাক্ট হাতে পেয়ে যাবে তখন পেমেন্ট করে নিবে।।

ক্রেতাদের কাছে আপনার প্রোডাক্টের যেভাবে পৌঁছে দিবেন।

আপনি বিভিন্নভাবে আপনার ক্রেতাদের কাছে প্রোডাক্টটি পৌঁছে দিতে পারেন বিভিন্ন কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আপনি তাদেরকে প্রোডাক্টটি পৌঁছে দিতে পারেন।

এবং আপনার নিজস্ব সার্ভিস চালু করতে পারোন অথবা নিজস্ব পরিবহন চালু করতে পারেন যার মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন প্রোডাক্ট আপনার ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দিতে পারেন।

এবং প্রচুর পরিমাণে ই-কমার্স পরিবহনকারী রয়েছে তাদের মাধ্যমেও আপনি আপনার ক্রেতাদের কাছে আপনার প্রোডাক্টটি পৌঁছে দিতে পারেন।

এক্ষেত্রে আপনার যে কোন একটি সার্ভিস ব্যবহার করতে পারেন কুরিয়ার সার্ভিস অথবা ই-কমার্স পরিবহন সার্ভিস ব্যবহার করতে পারেন এক্ষেত্রে তাদের সাথে আপনাকে চুক্তি করে নিতে হবে এবং চুক্তির মাধ্যমে আপনি বিজনেস টি চালু করে নিতে পারবে।

কিভাবে পণ্যের প্রচার করবেন।
আপনা যখন নতুন একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট চালু করবেন তখন আপনার ওয়েবসাইট সম্বন্ধে এবং আপনার প্রোডাক্টের সম্পর্কে মানুষ খুব বেশী জানবে না সেজন্য আপনাকে প্রোডাক্টের এডভার্টাইসমেন্ট করতে হবে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে এবং বিভিন্ন ওয়েব সাইটে অ্যাড ক্যাম্পেইন করতে হবে যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের খবরটি মানুষের কাছে পৌঁছে দেবেন এবং আপনার পণ্য সম্পর্কে মানুষকে জানিয়ে দেবেন বিভিন্ন এডভার্টাইসমেন্ট কম্পানিদের এর মাধ্যমে।

আপনি যদি ই-কমার্স বিজনেস করতে চান তাহলে খুব ভালোভাবে এ বিজনেস টি করতে হবে এ বিসনেস টি যদি আপনি ভালো ভাবে করতে না পারেন তাহলে আপনি প্রচুর পরিমাণে লস খেতে পারেন।
তো আপনাকে ভালোভাবে প্রোডাক্টে সিলেট করতে হবে ভালোভাবে প্রোডাক্টে সিলেট করার পর আপনার কে একটি কোম্পানি সিলেট করতে হবে যে কোম্পানিকে ধরে আপনি বিভিন্ন প্রোডাক্ট সেল করবেন।
সেটির জন্য কোম্পানির নাম সিলেক্ট করতে হবে এবং আপনার নিজের কোম্পানীর জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে হবে সেখানে আপনি আপনার প্রোডাক্টগুলো মানুষের কাছে সো করাবেন এবং সেখান থেকে প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন আপনাকে অবশ্যই প্রচুর পরিমাণে পরিশ্রম করতে হবে কষ্ট করতে হবে তবে আপনার সফল হতে পারবেন।

Post a Comment

0 Comments