ফ্রিলেনসিং নাকি চাকরি কোনটা করবো


আমরা সবাই আমাদের ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তিত থাকি।

নিজের ক্যারিয়ার সুন্দর করতে কে না চায়। আমাদের ক্যারিয়ারে আমরা অনেক কিছু করতে পারি সবাই কিন্তু এক কাজ করে সফল হয় না। এক এক জন এক একটি কাজ করে সফলতা অর্জন করে।

আমরা সবাই ক্যারিয়ারে সফলতা অর্জন করতে চাই তাই আমাদেরকে জানতে হবে আমরা কোন কাজটি করলে সফল হতে পারবো। আমাদের সবারই কোন না কোন একটি দিকে ইন্টারেস্ট থাকে কেও ব্যবসা করতে পছন্দ করে। আবার কেও জাকরি করতে পছন্দ করে। আবার কেও ফ্রিলেনসিং করতে পছন্দ করে।

অনেকেই বুজতে পারেন না যে কোনটা করলে আমি আমার লাইফে সফলতা পাবো। আশা করি এই লেখাটি পরলে আপনি বুজতে পারবেন কোনটি করলে আপনার লাইফে ভাল।

চাকরি


চাকরি হল আপনি কোন একটি অফিসে কাজ করবেন। তা সরকারি হক বা বেসরকারি হক। আমাদের দেশ সাধারনত  ৯ টা থেক ৫ টা বেশির ভাগ চাকরির সময় হয়ে থাকে এই সময়টুকু তাদেরকে অফিসেই কাটাতে হয়।
চাকরি হল একটি চুক্তিপত্র বেতন এর বিনিময়ে কাজ করা মাসশেসে আপনাকে আপনার বেতন দিয়ে দিবে। সাপ্তাহিক ছুটি পাবেন চাকরিতে ভাতা, আবার বোনাস, ইদের ছুটি এগুলো পেয়ে থাকেন চাকরিজীবীরা।

ফ্রিলেনসিং

ফ্রিলেনসিং এর প্রথম সুবিধা হল নিজের ইচ্ছামত কাজ করা যায় কাজের কোন নির্দিষ্ট সময় নাই আপনার ইচ্ছামত সময় নিয়ে কাজ করতে পারবেন। আর আপনাকে যে এক জায়গায় বসেই কাজ করতে হবে তা কিন্তু না আপনার যেখানে ইচ্ছা সেখানে গিয়ে কাজ করতে পারেন। আপনার খুশিমত।
কোথাও গুরতে গেলেও আপনার কাজ থেমে থাকবে না আপনার যদি একটি লেপটপ থাকে তাহলে আপনি যে কোন স্হান থেকে ফ্রিলেনসিং করতে পারেন। এখানে সব কিছুই আপনার নিজের স্বাধিনতা।
তবে এই কাজটি যতটা সহজ ভবছেন ততটা সহজ না কাজের অনেক স্বাধিনতা আছে যা চাকরিতে নেই। কিন্তু এখানে কাজ করাটা এতটা সহজ না। এখানে কাজ করতে আশা অনেক লোকই ফিরে যায়। ফ্রিলেনসিং করতে হলে আপনাকে ভালবাবে কাজ জানতে হবে। কাজ জানার পাশাপাশি ক্লাইন্টকে মেনেজ করার মত টেকনিক থাকতে হবে নয়ত আপনি কাজই নিতে পারবেন না এবং সুন্দর ভারদবে প্রজেক্ট জমা দেওয়া। বায়ারদের সাথে সুন্দর ভাবে কিমিওনিকেশন করা ইত্যাদি।

ফ্রিলেনসিং হচ্ছে একটি ব্যবসার মত আপনি চাইলে এখানে ফুল টাইম সময় দিতে পারেন আবার চাইলে হাফ টাইম সময় দিতে পারেন।

এখন কোনটা ভালো হবে আপনার জন্য

আপনার যদি নিয়ম কানুন মেনে প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময় কাজ করতে মন চায় এবং একটি নির্দিষ্ট টাকার মাজে কাজ করতে চান যেখান থেকে প্রতি মাসে একই টাকা পাবেন বা সাপ্তাহিক একদিন ছুটি চান তাহলে আপনি চাকরি বেছে নিতে পারেন।

আর যদি আপনার ফুলটাইম কাজ করতে ভাল না লাগে আপনি ঘুরাগুরি করতে চান আপনার নিজে ইচ্ছা মত সময় নিয়ে কাজ করতে চান, কোন  নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে কাজ করতে চান না তাহলে আপনি ফ্রিলেনসিং বেছে নিতে পারেন

সুঝোগ সুবিধা

এক একটি কাজের এক এক রকম সুঝোগ সুবিধা থাকে আপনি যদি চাকরি করেন তাহলে কোন একটি কম্পানির আন্ডারে আপনাকে কাজ করতে হবে নির্দিষ্ট একটি সময়ের মাজে প্রতিদিন কাজ করতে হবে, আপনার একটি অফিস থাকবে যেখানে গিয়ে আপনাকে প্রতিদিন তার কাজ করে দিতে হবে এবং মাস সেশে তার বেতন পাবেন।

আর ফ্রিলেনসিং হল সব কিছুই নিজের উপর আপনাকে কোন কম্পানির সাথে নির্দিষ্ট সময়ে কাজ করতে হবে না। কাজ করতে পারবেন আপনার ইচ্ছা মত তবে আপনাকে কোন একটি ক্লাইটের হয়ে কাজ করতে হবে। আপনি আপনার ক্লাইন্ট এর কাছ থেকে কাজ নিবেন কাজ দেওয়ার সময় হলে তার কাজ তাকে দিতে হবে। এখন আপনি যখন ইচ্ছা তখন কাজ করে রাখতে পারেন দিনে অথবা রাতে আপনার ইচ্ছা মত কাজ করতে পারেন।

আবার আপনার এই ক্লাইন্টের কাজ করতে ইচ্ছা না হলে অন্য ক্লাইন্টের কাজ করতে পারেন। তার খেত্রে অবশ্যই আপনাকে ভাল দক্ষ হতে হবে এবং নিজের কথা বলার টেকনিক কজে লাগাতে হবে না হলে কাজই পাবেন না।

কাজের চাহিদা

আপনি যদি চাকরি করেন আপনাকে প্রতিদিন অফিসে যেতে হবে এবং কাজ করতে হবে কাজ যদি না করেন আপনার বস বলবে আপনাকে কাজ করতে যদি অফিসে লেড করে যান আপনাকে বকাজকা করতে পারে আপনার বস।

আর ফ্রিলেনসিং এর খেত্রে কাজ না করলে আপনাকে কেউ বলবেনা কাজ করতে। এখানে কাজ করলে টাকা পাবেন না করলে টাকা পাবেন না। কাজ না করলে আপনাকে কেউ বলবে না কাজ করতে। এখানে সব কিছু করতে হবে আপনের নিজের চাহিদায়। মনে করেন আপনার ক্লাইন্ট আপনাকে একটি কাজ দিল সেই কাজ জমা দিতে হবে ১০ দিনের মধ্যে এখন আপনি এই কাজটি ১০ দিনে করবেন না ১ দিনে করবেন এটা আপনের ব্যাপার আপনি ৯ দিন ঘুমিয়ে থাকেন ১০ দিনের দিন কাজ করে জমা দেন কোন সমস্যা নাই। এটাই হল চাকরি আর ফ্রিলেনসিং মাজে প্রার্থক্য।

এখন আপনি নিজেই বেছে নিতে পারেন কোনটি আপনি করতে পারবেন চাইলে আপনি চাকরি করতে পারেন আবার চাইলে ফ্রিলেনসিং করতে পারেন।

Post a Comment

0 Comments