মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন কি? এবং কেন শিখবেন। আপনার জন্য কতটা জরুরী

মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন হচ্ছে একটি প্যাকেজিং সফটওয়্যার।


এর মধ্যে 9 টি সফট্ওয়্যার রয়েছে যা কম্পিউটারে প্রাথমিক ধারণার জন্য খুবই দরকারি কয়েকটি সফটওয়্যার যেগুলো জানা থাকলে আপনি পরবর্তিতে কম্পিউটারের বেশকিছু কাজ করতে পারবেন।
এই সফটওয়্যার গুলোর কাজ যদি আপনি না জেনে থাকেন তাহলে খুব এডভান্স লেভেলের কাজ আপনি বুঝবেন না।
যেমন টাইপ করা কপি পেস্ট করা এবং কি-বোর্ডের কিছু শর্ট-কাট রয়েছে সেই বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনি জানতে পারবেন না যদি এ মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন সফটওয়ারটি টি না জানেন।
মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন অনেক সফটওয়্যার রয়েছে যেগুলো আপনি কোন চাকরির ক্ষেত্রে আবেদন করার জন্য এই স্কিলগুলো আপনার থাকা টা জরুরী।
যেমন

মাইক্রোসফট অফিস ওয়ার্ড।
মাইক্রোসফট এক্সেল।
এবং পাওয়ার পয়েন্ট ।
এবং মাইক্রোসফটের ডাটাবেজ।

যে কোন অফিসে চাকরির ক্ষেত্রে আপনাকে এই সফটওয়্যার গুলো সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে যদি আপনি এই সফটওয়্যার গুলো সম্পর্কে ধারণা না রাখতে পারেন।
তাহলে আপনি কোন অফিসে কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে জব করতে পারবেন না।
মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন এর এ সফটওয়্যারগুলো হচ্ছে বেসিক থেকে শুরু করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সফটওয়্যার।
যে সফটওয়্যার গুলোর কাজ জানলে আপনি পরবর্তিতে অনলাইনে কাজ করতে পারবেন এবং ফটো সব এক্সপার্ট হতে পারবেন এবং অনলাইনে ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে আপনার এই অপশনগুলো কাজে দেবে ।
বিভিন্ন বেসিক কিছু কাজের ক্ষেত্রে আমাদের এই মাইক্রোসফ্ট এবং এক্সেল পাওয়ার পয়েন্ট এর টুলগুলো ব্যবহার করা জানা থাকলে আমরা অনেক ক্ষেত্রেই অনেক ধরনের এডভান্স লেভেলের কাজ করতে সুবিধা হবে।
তাই আমি বলব আপনি যদি এই সফটওয়্যার গুলোর কাজ সম্পর্কে না জানেন তাহলে অনলাইনে এসে ইনকাম করা অথবা ব্লগিং করা অথবা অনলাইন থেকে ভালো কিছু এডভান্স লেভেলের কোন বেশি চিন্তাভাবনা না করে
আপনি আগে মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন এর এই সফটওয়্যার গুলো ব্যবহার করা শিখেন তাহলে আপনার মোটামুটি কম্পিউটার সম্বন্ধে ভালো একটা ধারণা হয়ে যাবে দেন পরবর্তীতে আপনি যত এডভান্স লেভেলের কাজ করতে চান খুব সহজেই সেই কাজগুলো করতে পারবেন।

মাইক্রোসফট অফিস ওয়ার্ড 

এটি হচ্ছে মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন এর প্রথম একটি সফটওয়্যার যেই সফটওয়্যারটি দিয়ে আমরা সাধারণত টাইপের কাজ করে থাকি কোন এবং কোন লেখালেখির যে সমস্ত কাজ গুলো আছে আমরা সমস্ত কাজ সফটওয়্যার দিয়ে করে থাকি।
এই সফটওয়্যারটি দিয়ে বায়োডাটা এবং ইমেইল লেখালেখি অথবা কোন নোটিশ লেখা এই সমস্ত কাজ গুলো এ মাইক্রোসফট অফিস ওয়ার্ড এ সফটওয়ারটি দিয়ে হয়ে থাকে।
যে কাজগুলো চাইলে আমরা ফটোশপ দিয়েও করতে পারি অ্যাডভান্স ভাবে। ঠিক সেই কাজগুলো আমরা মাইক্রোসফট দিয়ে করে থাকি বেসিক সময়ের জন্য এবং মাইক্রোসফট ওয়ার্ড টি খুবই ইজি একটি সফটওয়্যার যেটা আপনার টাইপিং এর সমস্ত কাজ করতে পারবেন।

মাইক্রোসফট এক্সেল

মাইক্রোসফট এক্সেল হচ্ছে একটি হিসাব নিকাশের সফটওয়্যার
এই সফটওয়্যার দিয়ে আপনার যত বড় ধরনের হিসাব-নিকাশ আছে সমস্ত হিসাব গুলো আপনি এই মাইক্রোসফট এক্সেল এর মাধ্যমে করতে পারবেন।
এবং এইএক্সেল এর অনেক কিছু সুবিধা আছে যেমন আপনি একটি অংক করে দিলে পরবর্তী সময়ে আরো অনন্য অংক যদি আপনি করতে চান সেগুলো সে মাইক্রোসফট নিজেই তৈরি করে দিতে পারবে।
এবং বিভিন্ন ধরনের লিস্ট তৈরি করে রাখার জন্য মাইক্রোসফট এক্সেল সফটওয়্যার টি ব্যবহার করা হয়।
এক্সেল এ সফটওয়্যারটি কম্পিউটারের একটি জনপ্রিয় সফটওয়্যার এই সফটওয়্যারটি ভালোভাবে শিখিয়ে নিতে পারলে আপনি অনেক ধরনের এডভান্স লেভেলের কাজ করতে পারবেন।
বিভিন্ন ফ্যাক্টরিতে এবং বিভিন্ন অফিসে এ মাইক্রোসফট এক্সেল এর ব্যবহার টি প্রচুর পরিমানে হয়ে থাকে আপনি মাইক্রোসফট এক্সেল সফটওয়্যার টি শিখে নিয়ে আপনি বিভিন্ন কোম্পানিতে চাইলে জব করতে পারেন।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন।

এই সফটওয়্যারটি দিয়ে মূলত প্রেজেন্টেশন এর কাজ করা হয়।
এবং ছোটখাট ডিজাইন এর কাজ করা হয়।
এই সফটওয়্যার টি ব্যবহার করে আপনি খুব সুন্দর একটি প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারবেন সেখানে এনিমেশনস স্লাইড ব্যবহার করতে পারবেন।
এবং বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন ব্যবহার করতে পারবেন এই সফটওয়্যার টির মাধ্যমে।
এ সফটওয়্যারটি আপনি ভালোভাবে শিখিয়ে নিতে পারলে পরবর্তী সময় যদি আপনি এডভান্স লেভেলের গ্রাফিক ডিজাইনের কোন একটি সফটওয়্যার এর কাজ শিখতে চান তাহলে এই সফটওয়্যার এর বেসিক কাজগুলো আপনাকে খুবই কাজে দেবে।
এই সফটওয়্যারটি দিয়ে আপনি আইডি কার্ড তৈরি করতে পারবেন এবং ভিজিটিং কার্ড তৈরি করতে পারবেন।
এবং এই সফটওয়্যারটির কাজ শিখে নিয়ে আপনি অনলাইনে প্রেজেন্টেশন এর কাজ করতে পারেন একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে।

মাইক্রোসফট ডাটাবেস।

এই সফটওয়্যারটি দিয়ে মূলত ডাটাবেজ তৈরি করা হয় কোন একটি মানুষের ইনফর্মেশন কে সেভ করে রাখার জন্য এই সফটওয়্যারটি তৈরি করা হয়েছে।
যেমন একজন মানুষের ইনফরমেশন তথ্য ও ফোন নাম্বার ইমেইল এই সমস্ত বিষয়গুলো একটি ডাটা সেভ করে রাখার জন্য এই সফটওয়্যারটি একটি অন্যতম সফটওয়্যার।
এই সফটওয়্যারটি সাধারণত ব্যাংকে এবং অফিসে প্রচুর পরিমাণে ব্যবহার করা হয়।
সফটওয়ারটি যদি আপনার জানা থাকে তাহলে আপনি পরবর্তিতে ভালো এডভান্স লেভেলের কাজ করতে পারবেন।
এই মাইক্রোসফ্ট অফিস এপ্লিকেশন এর সবগুলো সফটওয়্যারই হচ্ছে বেসিক লেভেলের সফটওয়্যার যারা কম্পিউটার সম্পর্কে কিছু জানেন না তাদের জন্য এই সফটওয়্যার গুলি খুবই উপকারী সফটওয়্যার।
আপনি চাইলে এই সফটওয়্যার এর ব্যবহার গুলো শিখে নিতে পারেন যদি আপনি কম্পিউটার সম্বন্ধে কিছুই না জানেন।
আর যদি আপনি কম্পিউটার সম্পর্কে ভালো জানেন এই সফটওয়্যার গুলো না জানা থাকা সত্ত্বেও তাহলে এই সফটওয়্যার গুলো আপনার সেকার তেমন কোন গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োজন নেই।
এবং আপনি যদি কম্পিউটার এ নতুন হয়ে থাকেন তাহলে আপনি এই সফটওয়্যার গুলো শিখে নিবেন।
আমি মনে করি আপনি কম্পিউটারে নতুন হয়ে থাকলে এই সফটওয়্যার গুলো শিখে নেওয়ার মাধ্যমে আপনার কম্পিউটারের বেসিক অনেক বিষয়গুলো সম্পর্কে জানবেন যা পরবর্তীতে কোন বড় ধরনের সফটওয়্যার এর কাজ করতে গেলে আপনার অনেকটাই সুবিধা হবে।

তাই আমি বলব আপনি কম্পিউটারের শুরু টাই কোন বড় ধরনের এডভান্স লেভেলের কাজ করার অতঃপর ফ্রিল্যান্সিং আউটসোর্সিং করার চিন্তাভাবনা না করে আপনি প্রথমে এই মাইক্রোসফট অফিস এপ্লিকেশন এর সফটওয়্যার গুলো ভালোভাবে শিখিয়ে নিন তারপরে আপনি বড় কোন একটি সফটওয়্যার এর কাজ শিখার চেষ্টা করেন আপনি খুব সহজে যে কোন কাজ শিখে ফেলতে পারবেন।
এই সফটওয়্যার গুলোর কাজ জানা থাকলে পরবর্তীতে বড় ধরনের সফটওয়্যার গুলো শিখতে আপনার জন্য খুবই সহজ হয়ে যাবে এবং আপনি খুব দ্রুতই সে বিষয়গুলো সম্পর্কে বুঝতে পারবেন।

কোন ভুল হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন,পোষ্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করে দিবেন।
এবং কিছু বলার থাকলে কমেন্ট করতে পারেন ধন্যবাদ....

Post a Comment

0 Comments